আবু ইউসুফের বিচার

আব্বাসীয় খলিফা হাদী’র শাসনকাল।

বাগদাদে প্রধান বিচারপতি আবু ইউসুফের আদালত।

এক ব্যক্তি একটি মামলা নিয়ে এলেন আদালতে।

মামলা স্বয়ং খলিফা হাদী’র বিরুদ্ধে।

একটা বাগান নিয়ে খলিফার সাথে তাঁর ঝগড়া।

লোকটির দাবী বাগানটি খলিফা হাদীর নয়, তাঁর।

সব শুনে বিচারপতি আবু ইউসুফ নিশ্চিত হলেন বাগানটি লোকটিরই প্রাপ্য।

কিন্তু সমস্যা হলো খলিফার পক্ষে দু’জন সাক্ষ্য দিচ্ছে।

এই অবস্থায় বিচারপতি আবু ইউসুফ সাক্ষ্য দেওয়ার জন্য খলিফাকে আদালতে হাজির হবার নির্দেশ দিলেন।

খলিফা আদালতে হাজির হলে বিচারপতি আবু ইউসুফ তাঁকে বললেন, ‘খলিফার সাক্ষীরা যে সত্যবাদী এ ব্যাপারে খলিফাকে শপথ করতে হবে।’

খলিফা এই শপথ করার চাইতে বাগানটি বাদীকে ছেড়ে দেয়াকেই সহজ মনে করলেন এবং বাগানটি বাদীকে ছেড়ে দেয়াকেই সহজ মনে করলেন এবং বাগানটি বাদীকে দিয়ে দিলেন।

আবু ইউসুফের আরেকটি বিচারের ঘটনা।

আব্বাসীয় খলিফা হারুনুর রশীদ তখন ক্ষমতায়।

একটি মামলায় খলিফা আবু ইউসুফের আদালতে হাজির হলেন।

খলিফার দাবীর পক্ষে সাক্ষী ছিল ফজল ইবনুল রাবী।

বিচারপতি আবু ইউসুফ ফজহল ইবনুর রবীর সাক্ষ্য বাতিল করে দিলেন।

খলিফা হারুনুর রশীদ ক্ষুব্দ হয়ে বললেন, “ফজলের সাক্ষ্য নাকচ করে দেবার কারণ কি?”

বিচারপতি আবু ইউসুফ বললেন, “আমি ফঝলকে বলতে শুনেছি যে, সে আপনার গোলাম।”

যদি তার কথা সত্য হয়, তাহলে আপনার গোলামের সাক্ষ্য গ্রহণযোগ্য নয়, আর যদি সে আপনার গোলাম না হয় তাহলে সে মিথ্যুক।

মিথ্যুকের সাক্ষ্য গ্রহণ করা যেতে পারে না।”

You may also like...

Skip to toolbar