এক জান্নাতী সাহাবিয়ার অনন্যসাধারণ ঘটনা- প্রথম অংশ

দ্বিতীয় অংশ পড়তে এখানে ক্লিক করুন

হযরত আনাস ইবনে মালিক রা. হতে বর্ণিত, নবী করীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইরশাদ করেছেন, স্বপ্নে আমি জান্নাতে প্রবেশ করলাম। হঠাৎ কারো নড়াচড়ার শব্দ শুনতে পেলাম। আমি ফেরেশতাদেরকে জিজ্ঞেস করলাম, ইনি কে? তারা বললেন, ইনি হলেন রুমাইছা বিনতে মিলহান, আনাস ইবনে মালিকের আম্মা।-সহীহ মুসলিম, হাদীস : ২৪৫৬; মুসনাদে আহমদ, হাদীস : ১১৯৫৫; তবাকাতে ইবনে সাদ ৮/৪২৯; মুসনাদে তয়ালিসী, হাদীস : ১৭১৫

হযরত জাবের রা. হতে বর্ণিত হাদীসে নবী করীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইরশাদ করেছেন, আমি স্বপ্নে দেখলাম জান্নাতে প্রবেশ করেছি। হঠাৎ দেখি আমার সামনে আবু তলহার স্ত্রী রুমাইছা।-সহীহ বুখারী, হাদীস : ৩৬৭৯; মুসনাদে আহমদ, হাদীস : ১৫০০২; সহীহ ইবনে হিববান, হাদীস : ৭০৮৪; সুনানে নাসায়ী কুবরা, হাদীস : ৮১২৪

হযরত রুমাইছা বিনতে মিলহান আনসারিয়া রা.-এর উপনাম হল উম্মে সুলাইম। এ নামেই তিনি অধিক প্রসিদ্ধ।

তিনি অনেক গুণ ও বৈশিষ্ট্যের অধিকারিনী ছিলেন। ইসলাম গ্রহণে অগ্রগামী সাহাবীদের মধ্যে তিনিও একজন। প্রথমে মালেক ইবনে নযরের সাথে তার বিবাহ হয়েছিল। সেই ঘরেই হযরত আনাস রা. জন্মগ্রহণ করেন। তার ইসলাম গ্রহণে ক্রুদ্ধ হয়ে স্বামী মালেক ইবনে নযর দেশত্যাগ করে সিরিয়ায় চলে যায় এবং সেখানেই তার মৃত্যু হয়। পরবর্তীতে তিনি হযরত আবু তালহা রা.-এর সাথে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন।

হযরত উম্মে সুলাইমের দ্বিতীয় বিবাহ (হযরত আবু তালহার সাথে) সম্পর্কে হযরত আনাস রা. বর্ণনা করেন, ইসলাম গ্রহণের পূর্বে হযরত আবু তালহা উম্মে সুলাইমকে বিবাহের প্রস্তাব দেন। প্রতি উত্তরে উম্মে সুলাইম রা. বলেন, আপনি কি জানেন, আপনি যে উপাস্যের পূজা করেন তা জমি থেকে উৎপন্ন? (মাটি, গাছ ও খড়কুটা দিয়ে তৈরি) তিনি বললেন, হ্যাঁ। উম্মে সুলাইম রা. বলেন, গাছ-গাছালির পূজা করতে আপনার কি লজ্জা করে না? আমি ইসলাম গ্রহণ করেছি। আপনি যদি আমার ধর্মের অনুসরণ করেন তবেই আমি আপনাকে বিবাহ করব। আপনার ইসলাম গ্রহণ করাটাই আমার মোহর। আমি এছাড়া আর কোনো মোহর চাই না। তিনি বললেন, ঠিক আছে। আমি ভেবে দেখি। তারপর তিনি ফিরে এসে বললেন, আমিও আপনার ধর্মের অনুসারী। কালিমা পড়ে তিনি মুসলমান হয়ে গেলেন এবং উম্মে সুলাইমকে বিবাহ করেন।-সুনানে নাসায়ী, হাদীস : ৩৩৪০; মুসান্নাফে আবদুর রাযযাক, হাদীস : ১০৪১৭

হযরত আনাস রা. যখন দশ বছর বয়সে উপনীত হলেন, তার আম্মা হযরত উম্মে সুলাইম তাকে নিয়ে রাসূলের দরবারে আগমন করলেন এবং বললেন, ইয়া রাসূলাল্লাহ! এই আমার ছেলে আনাস, আজ থেকে আপনার খেদমত করবে। তখন থেকেই আনাস রা. নিয়মিত রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম-এর খেদমত করেছেন। হযরত আনাস রা. বলেন, আল্লাহ তাআলা আমার আম্মাকে উত্তম বিনিময় দান করুন। তিনি আমাকে উত্তমভাবে লালন-পালন করেছেন।

দ্বিতীয় অংশ পড়তে এখানে ক্লিক করুন

You may also like...

Skip to toolbar