Menu

জান্নাতুল ফেরদাউসের বর্ণনা

0 Comments

জান্নাতুল ফেরদাউসকে আল্লাহতা’য়ালা নিজ কুদরতী হাতে তৈরী করেছেন । তার দরজা সবচেয়ে উচু দরজা অর্থাৎ সব থেকে উচু মর্যাদা । সকল ঈমানদার-ই জান্নাতে প্রবেশ করবে । সকল জান্নাতকে আল্লাহ তায়ালা ‘কুন অর্থাৎ হও’ দিয়ে তৈরী করেছেন । শুধু এক জান্নাত তৈরী করেছেন নিজ কুদরতের দ্বারা । ঐ জান্নাতের নাম দিয়েছেন জান্নাতের ফেরদাউস । ঐ জান্নাত এত উচু নিচের জান্নাতীগণ যখন উচু জান্নাতের দিকে লক্ষ্য করবে, তাদের কাছে এমন মনে হবে যেমন আমরা আকাশের তারকাকে ছোট দেখি । নীচের জান্নাতওয়ালারা বলবে , এটা জান্নাতুল ফোদাউস , তাদের দরজা সবচেয়ে উচু ।

এই জান্নাতে ঘর আল্লাহতায়ালা অন্য জান্নাতে যে সকল ঘর তৈরী করেছেন সে জান্নাতের ঘরের মত নয় । সাধারণ জান্নাতের ঘরের একটি ইট হবে সোনার ও আরেকটি হবে রূপার । জান্নাতুল ফেরদাউসে আল্লাহতায়ালা যে ঘর তৈরী করেছেন, তাতে

এক ইট লাল ইয়াকুতের, এক ইট হলুদ জমরদের , এক ইট সাদা মুতির,
যার প্লাষ্টার হবে সুগন্ধি মেশক, কংকর হবে লাল মুক্তা । ইয়াকুত পাথরের ছোট ছোট টিলা হবে , জাফরানের ঘাস হবে । আল্লাহ তায়ালা নিজের আরশকে উহার ছাদ বানিয়েছেন ।

আল্লাহতায়ালা যত মাখলুক তৈরী করেছেন তা থেকে আরশ সবচেয়ে সুন্দর । জান্নাতুল ফেরদাউসের প্রত্যেকটা মহলের ছাদ হবে আল্লাহতায়ালার আরশ । অন্য জান্নাতের জন্য তা হবে না ।

আল্লাহতায়ালা মুজাহিদদের রহমতের সুসংবাদ দিচ্ছেন । ঈমান এবং আল্লাহর জন্য জান-মাল এর বদলায় আল্লাহতায়ালা তাদের উপর সন্তুষ্ট হয়ে যাবেন এবং এমন ঘর দান করবেন যা হবে চিরস্হায়ী । দুনিয়ার ঘর আমাদেরকে ছেড়ে দেয় অথবা আমরা ছেড়ে যাই । কিন্তু জান্নাতের ঘর আমাদের ছাড়বেনা আমরাও জান্নাতের ঘর ছাড়বনা । উহার নিয়ামত সর্বদা থাকবে ।

Tags: , , , , , , , , ,

Leave a Reply

Skip to toolbar