তাকদীরের উপর বিশ্বাস রাখা

মদীনায় নিজ বাড়ীতে মৃত্যুর মুখে উবাদাহ বিন সামিত।

আসহনীয় রোগ-যন্ত্রণার মধ্যে দর্শনার্থীদের সান্ত¡না দিয়ে তিনি বরছেন, “আল্লাহর ফজিলতে ভাল আছি।”

শেষ মুহূর্ত যখন আসন্ন তখন উবাদাহ (রা) তাঁর গোলাম-খাদেম প্রতিবেশী এবং যাদের সাথে সব সময় উঠা-বসা করেছেন সেই পরিচিতজনদের তিনি ডেকে আনতে বললেন।

সাবাইকে ডেকে আনা হলো।

সবাই উপস্থিত হলে তাদের সবাইকে উদ্দেশ্য করে তিনি বললেন, “সম্ভবত এটাই আমার শেস দিন এবং আজকের রাত আমার আখিরাতের প্রথম রাত হতে পারে।

তোমাদের সাথে আমি যদি আমার মুখ দিয়ে অথতবা হাত দিয়ে কঠিন আচরণ করে থাকি, তাহলে আমার প্রাণবায়ু বেরিয়ে যাওয়ার আগেই একে একে তার প্রতিশোধ নিয়ে নাও এবং কিয়ামতের দিন আল্লাহ আমার থেকে প্রতিশোধ নেবেন।”

লোকেরা আরজ করল, “আপনি আমাদের পিতৃতুল্য এবং আমাদেরকে আদব ও শিষ্টাচার শিখিয়েছেন।”

উবাদাহ (রা) বললেন, “তোমরা কি আমাকে ক্ষমা করে দিয়েছ?”

সবাই বলল, “হ্যাঁ, ক্ষমা করে দিয়েছি।”

উবাদাহ (রা) বললেন, “হে আমার আল্লাহ, সাক্ষী থেকো।”

অন্তিম মুহূর্তে তাঁর ছেলে এসে আরজ করল, “আমাকে কিছু ওসিয়ত করুন।”

পুত্রকে শেস উপদেশে বললেন তিনি, “তাকদীরের উপর ইয়াকিন রেখো।

তা না হলে ঈমানের জন্যে উপযুক্ত হতে পারবে না।”

 

You may also like...

Skip to toolbar