পবিত্র কুরআনের অত্যান্ত গুরত্বপূর্ন দশটি আয়াত

১. হে মানবজাতী, ইবাদত করো তোমাদের রবের যিনি তোমাদের এবং তোমাদের পূর্বে যারা গত হয়েছে তাদের সবার স্রষ্টা, আর এই পথেই তোমরা মুক্তি লাভের আশা করতে পারো৷ সুরা বাক্কারা আয়াত-২১

২. তোমরা ধৈর্য ও নামাযের মাধ্যমে আমার নিকট সাহায্য প্রার্থনা করো, নিঃসন্দেহে নামায বড়ই কঠিন কাজ, কিন্তু তাদের জন্য কঠিন নয় যারা মনে করে একদিন তাদেরকে তাদের রবের নিকট ফিরে যেতে হবে৷ সুরা বাক্কারা আয়াত-৪৫

৩. আর ভয় করো সেই দিনকে যেদিন কেউ কারো সামান্যতম উপকারে আসবেনা, কারো পক্ষ থেকে কোন সুপারিশ গৃহিত হবেনা এবং বিনিময় নিেেয়ও সেদিন কাউকে ছেড়ে দেওয়া হবেনা৷ বাক্কারা আয়াত ৪৮
৪. হে ইমানদারগন, তোমাদের কাছে যে জ্ঞান এসেছে তা লাভ করার পর যদি তোমরা অবিশ্বাসীদের কামনা ও বাসনার অনুসারি হও তাহলে নিঃসন্দেহে তোমরা জালেমদের অনর্্তভুক্ত হবে৷ বাক্কারা ৪৫

৫. দুনিয়ার এই জীবন কতিপয় ধোকা ও প্রতারনার সামগ্রী ব্যতিত আর কিছুই নয়, (অতএব) তোমরা তোমাদের প্রভুর পক্ষ থেকে সেই (প্রতিশ্রুত) ক্ষমা ও চিরন্তন জান্নাত পাওয়ার জন্য একে অপরের সঙ্গে (নেক কাজের মাধ্যমে) প্রতিযোগিতা করো৷ সুরা হাদিদ আয়াত ২২

৬. হে ইমানদার গন, তোমাদের ধন সম্পদ ও সন্তানাদি যেন কখনো তোমাদের আল্লাহর স্বরণ থেকে উদাসিন না করে (কেননা) যারা এই কাজটি করবে তারা (আখেরাতে) চরম ক্ষতিগ্রস্থ হবে৷ সুরা মোনাফেকুন আয়াত ১০

৭. হে ইমানদার গন, তোমরা নিজেদের এবং তোমাদের পরিবার পরিজনকে (ধর্মিয় উপদেশের মাধ্যমে জাহান্নামের সেই কঠিন) আগুন থেকে বাচাও যাহার ইন্ধন হবে মানুষ ও পাথর৷ সুরা তাহরিম আয়াত ৭

৮. হে ইমানদার গন, তোমরা তোমাদের গোনাহের জন্য আল্লাহর নিকট তওবা করো একান্ত খাটি তওবা আশা করা যায় এর ফলে আল্লাহতায়ালা তোমাদের গোনাহ সমুহ ক্ষমা করবেন৷ সুরা তাহরিম ৯

৯. হে ইমানদারগন, সুদ যদি ছেড়ে না দাও তাহলে আল্লাহ এবং রাসুলের পক্ষ থেকে তোমাদের প্রতি যুদ্ধের ঘোষনা রইল৷

১০. মাতা পিতার প্রতি সদ্ধবহার কর, আর মাতা অত্যান্ত কষ্টে তোমাদের গর্ভে ধারন করেন৷

আপনি কি জানেন?
আপনি যখন একটি কোরআন হাতে নিবেন,
তখন শয়তানের মাথা ব্যথা হয়…
যখন এটি খুলবেন,
তখন সে অবসন্ন হয়…
যখন এটি পড়বেন,
তখন সে নিস্তেজ হয়…আর যখন এটাকে ভালোবাসবেন,
তখন সে পালাবে…

আর যখন এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইবেন,
তখন সে আপনাকে নিরুৎসাহিত করবে…

You may also like...

Skip to toolbar