শেষ রক্তবিন্দুর লড়াই

১৭৯৯ সালের ৪ঠা মে। ইংরেজ, নিজাম ও মারাঠার মিলিত বাহিনী শ্রীরঙ্গপত্তমে বীর টিপুর উপর ঝাঁপিয়ে পড়েছে।

টিপু ও টিপু সুলতানের ছোট্ট বাহিনী নির্ভীকভাবে তাদের মুকাবিলা করলো।

নিহত হলো অনেক শত্রু সৈন্য।

কিন্তু শত্রুর বিশাল বাহিনীর প্রবল বাহিনীর প্রবল চাপে ভেঙে পড়ল দুর্গের সিংহদ্বার।

ক্ষুদ্র বাহিনী সাথে নিয়ে টিপু সুলতান দুর্গদ্বার রক্ষার জন্যে শত্রুর উপর ঝাঁপিয়ে পড়লেন।

গুলীর অবিরাম বৃষ্টি তাদের ভয় দেখাতে পারল না। অকস্মাৎ একটা গুলী এসে টিপুর বাম পাশে বিদ্ধ হলো। কিন্তু তিনি স্থানে ত্যাগ করলেন না, তাঁর কোন সৈন্যও নয়।

টিপুর সৈন্যর মৃতদেহের স্তূপ দুর্গের দ্বার প্রায় বন্ধ করে দিল।

এ সময় আরেকটি গুলি টিপু সুলতানের বাম বুক বিদ্ধ করল।

অজস্র রক্তপাতে সিংহদিল টিপু লুটিয়ে পড়লেন মাটিতে।

কিন্তু অস্ত্র তিনি ত্যাগ করেন নি।একজন ইংরেজ তাঁর স্বর্ণ নির্মিত তরবারির বাঁটের জন্যে অগ্রসর হলো।

টিপু বাম বাহুর উপর ভর করে মাথাটা তুলে এক আঘাতে তাকে শেষ করে দিলেন।

আরও একজন ছুটে এলো তাঁর দিকে। তাকেও তিনি শেষ করলেন।

আরেকটি গুলী এসে এ সময় তাঁর কপালে বিদ্ধ হলো।

শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করলেন টিপু।

তাঁর মুখে কোন ভয়, দুশ্চিন্তা কিংবা উদ্বেগের ছাপ ছিল না, ছিল তাতে অসাধারণ এক প্রশান্তি ও দৃঢ়তার ছাপ।

যেন প্রশান্তিতে ঘুমিয়ে পড়েছেন তিনি।

You may also like...

Skip to toolbar