হুসাইন ঝর্ণা বিক্রি করলেন

মহানবীর (সা) প্রিয় নাতি ।

তিনি ইসলামের চতুর্থ খলিফা আলী (রা)-এর পুত্র।

দরিদ্রের জীবন তাঁর।

বিরাট ঋণের বোঝা তাঁর মাথায়।

কিন্তু ‘আবী নাইজার’ নামক অতি মূল্যবান ঝর্ণার মালিক তিনি।

অনেকেই হুসাইনকে (রা) পরামর্শ দেন যে, ‘আবী নাইজার‘ ঝর্ণ বিক্রি করে ঋণ শেষার্ধ করেও বেশ অর্থের মালিক হতে পারেন তিনি।

কিন্তু আবী নাইজার ঝর্ণার পানি গরীর মুসলমানরা ব্যবহার করে।

এ ঋর্ণার পানি থেকে সেচ করে তারা ফসল ফলায়।

হুসাইন (রা) এ ঋর্ণা বিক্রি করলে গরীব মুসলমানরা এ ঋর্ণার পানি থেকে বঞ্চিত হবে।

হুসাইন লাভবান হলেও মহাক্ষতিগ্রস্ত হবে বিরাট সংখ্যক গরীর মুসলমান।

এই চিন্তা করে হযরত হুসাইন (রা) আবী নাইজার ঋর্ণা বিক্রি করতে রাজী হননি।

গরীর মুসলমানদের ক্ষতিগ্রস্ত করার পরিবর্তে নিজের দারিদ্র ও ঋণের বোঝা বহনকেই বেহ্তর মনে করেন তিনি।

You may also like...

Skip to toolbar