Menu

হুসাইন ঝর্ণা বিক্রি করলেন

মহানবীর (সা) প্রিয় নাতি । তিনি ইসলামের চতুর্থ খলিফা আলী (রা)-এর পুত্র। দরিদ্রের জীবন তাঁর। বিরাট ঋণের বোঝা তাঁর মাথায়। কিন্তু ‘আবী নাইজার’ নামক অতি মূল্যবান ঝর্ণার মালিক তিনি। অনেকেই হুসাইনকে (রা) পরামর্শ দেন যে, ‘আবী নাইজার‘ ঝর্ণ বিক্রি করে ঋণ শেষার্ধ করেও বেশ অর্থের মালিক হতে পারেন তিনি। কিন্তু আবী নাইজার ঝর্ণার পানি গরীর […]

READ MORE

উমর (রা) জমির মালিক হওয়ার পর

মদীনায় হিজরতের পর উমর (রা) দরিদ্রের জীবন যাপন করতেন। খাইবার যুদ্ধের পর তাঁর ভাগে পড়লো উৎকৃষ্ট এক খণ্ড জমি, যা উমরের জন্যে নিয়ে এলো সচ্ছল জীবনের এক সম্ভাবনা। জমির মালিকানা পাওয়ার পর উমর (রা) মহানবী (সা)-এর কাছে হাজির হলেন। বললেন, ‘ইয়া রাসূলাল্লাহ, খাইবারে আমি খানিকটা জমি পেয়েছি। এত মূল্যবান সম্পত্তি আমি কোনদিন পাইনি। এ সম্পর্কে […]

READ MORE

এ দরবারে শুধু একজন আলেমই আছেন

সুলতান আবদুল আজিজ মিসর সফরে আসছেন। সাড়া পড়ে গেছে গোটা মিসরে। মিসরের শাসক ইসমাঈল সম্বর্ধনার আয়োজনে মহাব্যস্ত। সুলতান খুশী হলে শুধু তার আসন পাকাপোক্ত হওয়াই নয়, বহু আকাক্সিক্ষত খেতাবও এবার মিলে যেতে পারে। সুলতানের জন্যে আড়ম্বরপূর্ণ সম্বর্ধনার ব্যবস্থা বরলেন। নির্দিষ্ট দিনে সুলতান আবদুল আজিজ মিসরে আসলেন। তাঁর সম্মানে বিশেষ দরবার বসানো হলো। সুলতানকে সম্মান প্রদর্শনের […]

READ MORE

জালেম শাসকের সামনে নির্ভীক আলেম

জাহির নামের এক সুলতান তখন দামেশ্কের সিংহাসনে। বৃষ্টি না হওয়ায় পশুর মড়ক ইত্যাদি কারণে সিরিয়ায় তখন দুর্ভিক্ষাবস্থা। মানুষের দুর্গতির সীমা নেই। এই সময় যুদ্ধ-প্রস্তুতির কথ বলে শাসক জাহির জনগণের উপর ট্যাক্স বসালেন। দামেশকেই বাস করতেন শেখ মহিউদ্দিন নববী নামের এক বিখ্যাত আলেম। তিনি সুলতান জাহিরের কাছে এক চিঠি দুর্গত জনগণের উপর ট্যাক্স না বসাবার জন্যে […]

READ MORE

আবু ইউসুফের বিচার

আব্বাসীয় খলিফা হাদী’র শাসনকাল। বাগদাদে প্রধান বিচারপতি আবু ইউসুফের আদালত। এক ব্যক্তি একটি মামলা নিয়ে এলেন আদালতে। মামলা স্বয়ং খলিফা হাদী’র বিরুদ্ধে। একটা বাগান নিয়ে খলিফার সাথে তাঁর ঝগড়া। লোকটির দাবী বাগানটি খলিফা হাদীর নয়, তাঁর। সব শুনে বিচারপতি আবু ইউসুফ নিশ্চিত হলেন বাগানটি লোকটিরই প্রাপ্য। কিন্তু সমস্যা হলো খলিফার পক্ষে দু’জন সাক্ষ্য দিচ্ছে। এই […]

READ MORE

খলিফা আল-মানসুর যখন লা-জবাব

মুসলিম সাম্রাজ্যের রাজাধানী তখন বাগদাদে। খলিফা আল-মানসুরের শাসনকাল। খলিফার পরিচিতি নিয়ে চললেও এই শাসন তখন বহু ক্ষেত্রেই খেয়াল খুশীর উপর প্রতিষ্ঠিত হয়েছেল। যেমন জনগণের বাইতুল মাল তারা ব্যক্তিগত সম্পত্তির মত ব্যবহার করতেন। কিন্তু অবিরাম প্রতিবাদ হয়েছে এই স্বেচ্ছাচারিতার। এক দিনের একটি ঘটনা। সুফিয়ান সওরী গেলেন খলিফা আল-মানসুরের দরবারে। তিনি বললেন তাঁকে, “আমীরুল মুমিনীন, আপনি আল্লাহ […]

READ MORE

ইবনে আবজা যে কারণে গভর্নর হলেন

উমর (রা)-এর ফিলাফত-কাল। মক্কায় গভর্নর নিযুক্ত করেছেন তিনি নাফে ইবনুল হারিসকে। কোন এক প্রয়োজনে খলিফা উমর (রা) এসেছিলেন আরবেরই ‘উসফান’ নামক স্থানে। খলিফা সেখানে মক্কার গভর্নর নাফেকেও ডেকে পাঠিয়েছিলেন। নাফের সাথে যখন উসফানে উমর (রা)-এর সাক্ষাৎ হলো, তখন তিনি নাফেকে (রা) জিজ্ঞাসা করলেন, ‘মক্কায় তুমি কাকে তোমার স্থলাভিষিক্ত করে এসেছ?’ নাফে বললেন, ‘আজাদকৃত গোলাম ইবনে […]

READ MORE

উমর (রা) লোকদের সামনে সা’দকে দোররা কষলেন

মদীনা শরীফ। ইসলামী সাম্রাজ্যের রাজধানী। খলিফা উমর (রা) লোকদের মধ্যে বায়তুল মালের কিছু অর্থ বণ্টন করছেন। স্বাভাবিকভাবেই বিরাট ভিড় জমে গেছে। এ সময় সেখানে এলেন সা’দ ইবনে আবী ওয়াক্কাস। তিনি প্রভাবশালী ও অভিজাত মায়ের সন্তান। ভিড় দেখার পর অন্যান্যদের মত তাঁর ধৈর্য ধরার দরকার ছিল, কিন্তু তা তিনি করলেন না। তিনি ভিড় ঠেলে, দু’হাত দিয়ে […]

READ MORE

উমর (রা) মনিব ও চাকরকে একসাথে খাওয়ালেন

মক্কা শরীফের একটি ঘটনা। উমর (রা) তখন মক্কায়। তিনি পথ দিয়ে কোথাও যাচ্ছিলেন। হঠাৎ তাঁর চোখ গেল পাশেরই এক বাড়ীতে। বাড়ীর মালিকরা বসে খাচ্ছে আর চাকর-বাকররা পাশে দাঁড়িয়ে আছে। ক্রুদ্ধ হলেন উমর (রা)। তিনি থমকে দাঁড়ালেন এবং গিয়ে উঠলেন সেই বাড়ীতে। বললেন, “ব্যাপার কি! নিজেদের চাকর-বাকরদের সাথে এই বৈষম্যমূলক ব্যবহার করছ কেন?” বাড়ীর মালিকরা লজ্জিত […]

READ MORE

আবু বকর উমরকে চাইলেন উসামার কাছে

মুসলিম বাহিনী যাত্রা করেছে মু’তা অভিযানে। বাহিনীর সেনাপতি উসামা বিন যায়েদ। উসামা ঘোড়ায় সওয়ার। বাহিনীকে বিদায় দেয়ার জন্য খলিফা আবু বকর উসামার ঘোড়ার পাশাপাশি হেঁটে চলেচেন। অস্বস্তিবোধ করছেন উসামা। মহামান্য খলিফাতুল রাসূল (রা) হাঁটবেন আর উসামা তাঁরই সামনে ঘোড়ায় বসে থাকবে। উসামা খলিফা আবু বকর (রা)-কে বললেন, হে খলিফাতুর রাসূল, আপনি সাওয়ারিতে উঠুন, নয়তো আমি […]

READ MORE

বিলাল (রা)-এর ঘটকালি

বিলার (রা)-এর ভাই আবু রুয়াইহা আশিয়ানী। ইয়ামেনি এক পরিবারে তিনি বিয়ে করার ইচ্ছা করলেন। তিনি ধরলেন তাঁর ভাই বিলালকে (রা) তাঁর বিয়ের পয়গাম পৌঁছাবার জন্যে। ভাইয়ের অনুরোধে রাজী হলেন বিলাল (রা)। তিনি ভাইয়ের বিয়ের পয়গাম নিয়ে গেলেন সেই ইয়ামেনি পরিবারে। তিনি গিয়ে বরলেন, আমি বিলাল বিন রাবাহ, আবু রুয়াইয়া আমার ভাই। তাঁর ধর্ম ও চরিত্র […]

READ MORE

ইমাম ইউনুসের ব্যবসায়

ইমাম ইউনুস বিন ওবায়েদের কথা। তিনি ইসলামে একজন বড় খাদেম। এই সাথে সাথে বড় ব্যবসায়ীও। বিরাট তাঁর কাপড়ের ব্যবসা। বিভিন্ন দামের কাপড় থরে থরে সজ্জিত তাঁর দোকানে। তাঁর দোকানে এক ধরনের প্রতি জোড়া কাপড়ের দাম ফিল ৪০০ দিরহাম। অন্য আর এক ধরনের কাপড়ের প্রতি জোড়ার দাম ছিল ২০০ দিরহাম। একদিন তিনি ভাতিজাকে দোকানে রেখে আসরের […]

READ MORE

‘আপনি আচরি ধর্ম’

আলী (রা) তখন বিশাল সাম্রাজ্যের শাসক। আলী (রা) জ্ঞানের দরজা। ন্যায়দণ্ডের এক আপোষহীন রক্ষক তিনি। মদীনার এক শীতের রাত। শীতে ঠক্ ঠক্ করে কাঁপছেন আমীরুল মুমিনীন, বিশাল এক সাম্রাজ্যের শাসক আলী (রা)। শীত নিবারনের উপযুক্ত কাপড় তাঁর নেই। অথচ তাঁর রাষ্ট্রীয় খাজাঞ্চীখানায় প্রচুর শীতবস্ত্র। বরং সে খাজাঞ্চীখানা তাঁরই হাতের মুঠোয়। কিন্তু তা থেকে একটি কম্বল […]

READ MORE

উমর (রা) নিজের অহংকারকে শাস্তি দিলেন

উমর ইবনুল খাত্তাব (রা) তখন আমীরুল মুমিনীন, অর্ধ পৃথিবীর শাসক। ইনসাফের ব্যাপারে আপোষহীন উমারের (রা) শাসনদণ্ডকে ভয় না করেন এমন মানুষ নেই। একদিন দেখা গেল সেই উমর ইবনুল খাত্তাব ভারি একটি পানির মশক ঘাড়ে নিয়ে হাঁটছেন। বিস্মিত, বিক্ষুদ্ধ তাঁর পুত্র তাকে জিজ্ঞাসা করলেন, “কেন আপনি এরূপ করছেণ?” উমর (রা) বললেন, “আমার মন অহংকার ও আত্মগরিমায় […]

READ MORE

মাগের ইবনে মালিকের তাওবা

মাগের ইবনে মালিক (রা) মহানবী (সা)-এর একজন সাহাবী। সতর্কতা সত্ত্বেও কখনও কারো পা পিছলাতে পারে। মাগের ইবনে মালিকও (রা) গুরুতর অপরাধ করে বসলেন। অপরাধ করার পরই আল্লাহর ভয় তার মধ্যে এক মহাযন্ত্রণার সৃষ্টি করল। তার মনে হলো, এ অপরাধের জন্য আল্লাহ-নির্ধারিত শাস্তি গ্রহণের মাধ্যমেই তার যন্ত্রণার অবসান হতে পারে। মাগের ইবনে মালিক (রা) মহানবী (সা)-এর […]

READ MORE

আল্লাহর রাহে খরচের আকাংখ্যা

অষ্টম হিজরী সাল। সাইফুল বাহার যুদ্ধে যোগদান করেছে মুসলিমানদের একটি ছোট্ট বাহিনী। এই তিনশ, সদস্যের বাহিনীর মধ্যে আবু বকর (রা) ও উমর (রা) ছিলেন। আর ছিলেন মদীনার খাজরাজ সর্দার সা‘আদ বিন উবাদাহর ছেলে কায়েস (রা)। এই মুসলিম বাহিনীর অধিনায়ক ছিলেন আবু উবায়দাহ ইবনুল যাররাহ (রা)। অভিযানকালে মুসলিম বাহিনীর রসদ ফুরিয়ে গেলে ভয়ানক সংকটে পড়ল তারা। […]

READ MORE

ফিরিশতার সাহায্য

উহুদ যুদ্ধে যারা প্রাণান্ত লড়াই করেছেন, হারিস (রা) বিন সিমমা, তাদের একজন। যুদ্ধের চরম বিপর্যয় মুহূর্ত। হযরত হারিস (রা) যুদ্ধের এক পর্যায়ে মহানবী (সা)-কে অরক্ষিত অবস্থায় দেখতে পেলেন। ছুটলেন তাঁর কাছে। যুদ্ধের তীব্রটা একটু কমলে মহানবী (সাঃ) হযরত হারিস (রা)-কে জিজ্ঞেস করলেন, ‘তুমি আবদুর রহমান বিন আওফকে দেখেছ? হারিস (রা)-কে সান্ত¡না দিয়ে বললেন, “আবদুর রহমানকে […]

READ MORE

বারা ইবনে মালিক কথা রাখলেন

অগিনপূজক ইরানীদের সাথে যুদ্ধ। যুদ্ধ চলছে সুস্তার রণাঙ্গনে। আনাস ইবনে মালিক এবং তার ভাই বারা ইবনে মালিক পদাতিক বাহিনীর অফিসার। বারা ইবনে মালিক ছিালেন দক্ষিণ বাহুর একজন অফিসার। অনেক দিন ধরে চলছে সুস্তার দুর্গের অবরোধ। যুদ্ধের এক ফাঁকে আনাস ইবনে মালিক তার ভাই বারা ইবনে মালিকের তাঁবুতে প্রবেশ করলেন। দেখলেন, বারা সুর করে কবিতা আবৃত্তি […]

READ MORE

যে খাদ্য বরকতপূর্ণ

মদীনার খাজরাজ গোত্রের পল্লী। বনু নাজ্জারদের একটি বাড়ী। আনাস (রা) ইবনে মালিকের সৎ-পিতা আবু তালহা আনাসের মাকে এসে বললেন, ‘আল্লাহর রাসূল (সা) আজ অভুক্ত আছেন। কিছু খাদ্যের ব্যবস্থা কর। সঙ্গে সঙ্গেই উম্মে সুলাইম আনাসকে পাঠালেন। আনাস পৌঁছলেন। মহানবী (সা) তখন মসজিদে নব্বীতে বসেছিলেন। আনাসকে দেখেই আল্লাহর রাসূল (রা) তাকে জিজ্ঞাসা করলেন, ‘আবু তালহা তোমাকে পাঠিয়েছেন?’ […]

READ MORE

জীবন দিয়ে আদব রক্ষা

সাহাবী বারা (রা) বিনা মা’রুর পুত্র বশর বিন বারা। প্রাণবন্ত এক নবীন যুবক সে। ইসলামের যুগ-সন্ধিক্ষণের ঘটনা। আকাবার শপথ গ্রহণকারীদের একজন তিনি। বদর, উহুদ ও খন্দকের লড়াই-এরও তিনি এক যোদ্ধা। খাইবার যুদ্ধের পর এক ঘটনায় তিনি মহনবীর প্রতি আদব প্রকাশে এক ইতিহাস সৃষ্টি করলেন। সাহাবীদের মধ্যে বশর বিন বারা রয়েছেন। খাওয়া শুরু করেছেন তিনি। গোশতের […]

READ MORE

মুনাফিক সর্দারের ঈমানদার পুত্র

বনি মুসতালিকের যুদ্ধ শেষ। মহানবী (সা)-এর নেতৃত্বে মুসলিম বাহিনী মদীনায় ফিরছে। কি এক ঘটনায় একজন মুহাজিরের সাথে একজন আনসারের বিরোধ বাধল। বলা হলো, একজন মুহাজির লাথি মেরেছে একজন আনসারকে। এ নিয়ে পক্ষ-বিপক্ষের মধ্যে একটা শোরগোল সৃষ্টি হলো। মহানবী (সা)-এর কানে এলো বিষয়টা। তিনি তাদের ডেকে বললেন, ‘এ তো জাহেলী যুগের আওয়াজের মত শোনাচ্ছে। এসব আশোভন […]

READ MORE

তাকদীরের উপর বিশ্বাস রাখা

মদীনায় নিজ বাড়ীতে মৃত্যুর মুখে উবাদাহ বিন সামিত। আসহনীয় রোগ-যন্ত্রণার মধ্যে দর্শনার্থীদের সান্ত¡না দিয়ে তিনি বরছেন, “আল্লাহর ফজিলতে ভাল আছি।” শেষ মুহূর্ত যখন আসন্ন তখন উবাদাহ (রা) তাঁর গোলাম-খাদেম প্রতিবেশী এবং যাদের সাথে সব সময় উঠা-বসা করেছেন সেই পরিচিতজনদের তিনি ডেকে আনতে বললেন। সাবাইকে ডেকে আনা হলো। সবাই উপস্থিত হলে তাদের সবাইকে উদ্দেশ্য করে তিনি […]

READ MORE
Skip to toolbar