Menu

আল কোরআনের স্বান্তনা মূলক বানী

✿ আমি আল্লাহকে বলি আমি নিজের উপর জুলুম করেছি – আল্লাহ বলেন – “…হে আমার বান্দাগণ যারা নিজেদের উপর যুলুম করেছ তোমরা আল্লাহর রহমত থেকে নিরাশ হয়ো না।…” [সূরা আল-যুমার -৫৩] ✿ আমি আল্লাহকে আমার অন্তরের অশান্তির কথা বলি – আল্লাহ বলেন – “…আল্লাহর যিকির দ্বারা শান্তি লাভ করে; জেনে রাখ, আল্লাহর যিকির দ্বারাই অন্তর […]

READ MORE

সূরা ইখলাসের ফজিলত ও বরকত

১. সুরা ইখলাস কুরআন শরীফের সবচেয়ে সম্মানিত সুরার মধ্যে একটি। যে ব্যক্তি একবার সূরা ইখলাস পাঠ করবে সেই ব্যক্তি কুরআনুল কারীম এক তৃতীয়াংশ পাঠ করার সওয়াব লাভ করবে। ২. যে ব্যক্তি দশবার পাঠ করবে আল্লাহ্ তায়ালা নিজ কুদরতি হাতে জান্নাতের মধ্যে বিশেষ মর্যাদাশীল একটি মহল তৈরি করবেন। ৩. যে ব্যক্তি অধিক পাঠ করবে আল্লাহ তায়ালা […]

READ MORE

সূরা আল-কাফিরুনের শানে নযূল

রাসূল (সাঃ) যখন মক্কায় তাওহীদের দাওয়াত শুরু করলেন, তখন মক্কার কুরাইশগণ নানা কৌশলে তাঁকে এই দাওয়া থেকে বিরত রাখার চেষ্টা করল। আবু তালেবের কাছেও তারা একাধিকবার প্রতিনিধি পাঠিয়ে মুহাম্মাদ (সাঃ)কে সত্য দ্বীনের দাওয়াত থেকে বিরত রাখার চেষ্টা করে ব্যর্থ হয়েছে। অমানষিক নির্যাতন করেও কোন কাজ হয় নি। এমন কি তারা আরবের বাদশাহ বানিয়ে দেয়ার প্রস্তাবও […]

READ MORE

কুরআনে আল্লাহকে স্মরণ করার উপমা প্রদান

মানুষের মধ্যে তারাই সৌভাগ্যবান; যারা আল্লাহ তাআলার করুণায় হজ সম্পাদনে সক্ষম হয়। এমন অনেক মানুষ রয়েছে যাদের অর্থ-সম্পদ ও শারীরিক সক্ষমতা থাকা সত্ত্বেও হজ আদায় করার সৌভাগ্য হয় না। এ কারণে হজ আদায় করার সৌভাগ্য অর্জন মহান আল্লাহ তাআলার অপার রহমত। আল্লাহ তাআলা মুসলিম উম্মাহকে হজ সম্পাদনের পর তাঁকে স্মরণ করার জন্য বিশেষভাবে নির্দেশ দিয়েছেন। […]

READ MORE

কুরআনে জাহান্নামের আজাব থেকে মুক্তি লাভের দোয়া

আল্লাহ তাআলার অসংখ্য কুদরত ও নিদর্শনে ভরা এ সৃষ্টি জগত। যা নিয়ে সামান্য চিন্তা-ভাবনা করলেই তা অনুমিত হয়। আর এ সব সৃষ্টির বিষয়ে চিন্তা ভাবনায় বান্দার প্রতি আল্লাহ তাআলা সন্তুষ্ট হন। যাতে আল্লাহ তাআলার অনেক হিকমত রয়েছে। সৃষ্টি সম্পর্কে চিন্তা ও গবেষণা মানুষকে অন্যায় পথ পরিহারে অনুপ্রাণিত করে। তারপরও মানুষ ইচ্ছা-অনিচ্ছায় আল্লাহর বিধান লংঘন করে […]

READ MORE

সূরা ফাতিহার বৈশিষ্ট্য ও ফজিলত

আল-কুরআন আল্লাহর বাণী, যা জিবরাঈল আলাইহিস সালামের মাধ্যমে সুদীর্ঘ ২৩ বছরে আল্লাহ তাআলার পক্ষ থেকে আমাদের প্রিয় নবী মুহাম্মাদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের প্রতি প্রয়োজনে অবস্থার প্রেক্ষিতে নাজিল হয়। আল-কুরআনকে আল্লাহ রাববুল আলামীন সব মানুষের সার্বিক কল্যাণ ও মুক্তির দিশারী বা পথপ্রদর্শক রূপে নাজিল করেছেন।এই আল-কুরআনের ভূমিকা এবং শ্রেষ্ঠ দোয়া হলো সূরাতুল ফাতিহা। এটিকে আবার […]

READ MORE

পবিত্র কুরআনের অত্যান্ত গুরত্বপূর্ন দশটি আয়াত

১. হে মানবজাতী, ইবাদত করো তোমাদের রবের যিনি তোমাদের এবং তোমাদের পূর্বে যারা গত হয়েছে তাদের সবার স্রষ্টা, আর এই পথেই তোমরা মুক্তি লাভের আশা করতে পারো৷ সুরা বাক্কারা আয়াত-২১ ২. তোমরা ধৈর্য ও নামাযের মাধ্যমে আমার নিকট সাহায্য প্রার্থনা করো, নিঃসন্দেহে নামায বড়ই কঠিন কাজ, কিন্তু তাদের জন্য কঠিন নয় যারা মনে করে একদিন […]

READ MORE

‘সত্যবাদিতা’ সম্পর্কিত কুরআনের আয়াত

–قُلْ إِنْ كانَتْ لَكُمُ الدَّارُ الْآخِرَةُ عِنْدَ اللَّهِ خالِصَةً مِنْ دُونِ النَّاسِ فَتَمَنَّوُا الْمَوْتَ إِنْ كُنْتُمْ صادِقِينَ . ‘তুমি বল, যদি অপর ব্যক্তিগণ অপেক্ষা বিশেষভাবে শুধু তোমাদের জন্যে আল্লাহর নিকট বাসস্থান থাকে, তবে তোমারা মৃত্যু কামনা কর, যদি তোমরা সত্যবাদী হও’ (বাক্বারাহ ২/৯৪)। ২ –وَقالُوا لَنْ يَدْخُلَ الْجَنَّةَ إِلَّا مَنْ كانَ هُوداً أَوْ نَصارى تِلْكَ […]

READ MORE

‘জ্ঞানী ব্যক্তির মর্যাদা’ সম্পর্কিত কুরআনের আয়াত

মহান আল্লাহ তাআলাই মানুষকে জ্ঞান দান করেছেন। আসুন দেখি জ্ঞানী ব্যক্তির সম্পর্কে মহান আল্লাহ তাআল কি বলেছনেঃ- ১.‘যে ব্যক্তি রাত্রিকালে সিজদার মাধ্যমে অথবা দাঁড়িয়ে ইবাদত করে, পরকালের ভীতিশঙ্কা রাখে এবং তার পালনকর্তার রহমত কামনা করে, সে কি তার সমান, যে এরূপ করে না। বলুন, যারা জানে এবং যারা জানে না; তারা কি সমান হতে পারে? […]

READ MORE

নূহ (আঃ) এর কওমের উপর আরোপিত গযবের কাহিনী

আল্লাহ বলেন, مِمَّا خَطِيئَاتِهِمْ أُغْرِقُوْا فَأُدْخِلُوْا نَاراً فَلَمْ يَجِدُوْا لَهُم مِّن دُوْنِ اللَّهِ أَنصَاراً- ‘তাদের পাপরাশির কারণে তাদেরকে (প্লাবনে) ডুবিয়ে মারা হয়েছিল। অতঃপর তাদেরকে (কবরের) অগ্নিতে প্রবেশ করানো হয়েছিল। কিন্তু নিজেদের জন্য আল্লাহর মুকাবেলায় কাউকে তারা সাহায্যকারী পায়নি’ (নূহ ৭১/২৫)। উপরোক্ত আয়াতে বুঝা যায় যে, পথভ্রষ্ট সমাজনেতাদের সাথে পুরা সমাজটাই পাপে নিমজ্জিত হয়েছিল। যেজন্য সর্বগ্রাসী […]

READ MORE

নূহ (আঃ)-এর দাওয়াতের ফলশ্রুতি

আল্লাহ তা‘আলা নূহ (আঃ)-কে সাড়ে নয়শত বছরের সুদীর্ঘ জীবন দান করেছিলেন। তিনি এক পুরুষের পর দ্বিতীয় পুরুষকে অতঃপর তৃতীয় পুরুষকে শুধু এই আশায় দাওয়াত দিয়ে যাচ্ছিলেন যে, তারা ঈমান আনবে। কিন্তু শতাব্দীর পর শতাব্দী অক্লান্তভাবে দাওয়াত দেওয়া সত্ত্বেও তারা ঈমান আনেনি। মূলতঃ এই সময় নূহ (আঃ)-এর কওম জনবল ও অর্থবলে বিশ্বে অপ্রতিদ্বন্দ্বী ছিল। সংখ্যাধিক্যের কারণে […]

READ MORE

নূহ (আঃ) এর বিরুদ্ধে তার কওমের আপত্তি সমূহের জওয়াব

(১) গোত্রের নেতাদের উপরোক্ত আপত্তি ও অপবাদ সমূহের জবাবে নূহ (আঃ) বলেন, قَالَ يَا قَوْمِ أَرَأَيْتُمْ إِنْ كُنْتُ عَلَى بَيِّنَةٍ مِّن رَّبِّيْ وَآتَانِيْ رَحْمَةً مِّنْ عِنْدِهِ فَعُمِّيَتْ عَلَيْكُمْ أَنُلْزِمُكُمُوْهَا وَأَنتُمْ لَهَا كَارِهُوْنَ- (هود ২৮)- ‘হে আমার কওম! আমি যদি আমার প্রভুর পক্ষ হ’তে স্পষ্ট দলীলের উপরে থাকি, আর তিনি যদি তাঁর পক্ষ হ’তে আমাকে রহমত […]

READ MORE

নূহ (আঃ)-এর বিরুদ্ধে পাঁচটি আপত্তি

কওমের অবিশ্বাসী নেতারা জনগণকে বিভ্রান্ত করার জন্য নূহ (আঃ)-এর বিরুদ্ধে পাঁচটি আপত্তি উত্থাপন করেছিল। যথাঃ (১) আপনি তো আমাদের মতই একজন মানুষ। নবী হ’লে তো ফেরেশতা হতেন। (২) আপনার অনুসারী হ’ল আমাদের মধ্যকার হীন ও কম বুদ্ধিসম্পন্ন লোকেরা (৩) কওমের উপরে আপনাদের কোন প্রাধান্য পরিদৃষ্ট হয় না (হূদ ১১/২৭)। (৪) আপনার দাওয়াত আমাদের বাপ-দাদাদের রীতি […]

READ MORE

স্বীয় কওমের প্রতি নূহ (আঃ)-এর দাওয়াতের ইতিহাস

  আল্লাহ বলেন, إِنَّا أَرْسَلْنَا نُوحاً إِلَى قَوْمِهِ أَنْ أَنذِرْ قَوْمَكَ مِن قَبْلِ أَن يَّأْتِيَهُمْ عَذَابٌ أَلِيمٌ، قَالَ يَا قَوْمِ إِنِّي لَكُمْ نَذِيرٌ مُّبِينٌ،َ أَنِ اعْبُدُوا اللهَ وَاتَّقُوهُ وَأَطِيعُونِ، يَغْفِرْ لَكُم مِّنْ ذُنُوْبِكُمْ وَيُؤَخِّرْكُمْ إِلَى أَجَلٍ مُّسَمًّى إِنَّ أَجَلَ اللهِ إِذَا جَاءَ لاَ يُؤَخَّرُ لَوْ كُنتُمْ تَعْلَمُونَ- (نوح ১-৪)- ‘আমরা নূহকে তার কওমের নিকটে প্রেরণ […]

READ MORE

নূহ (আঃ) এর সময়কার সামাজিক ও ধর্মীয় অবস্থা

আদম (আঃ)-এর সময়ে ঈমানের সাথে শিরক ও কুফরের মুকাবিলা ছিল না। তখন সবাই তওহীদের অনুসারী একই উম্মতভুক্ত ছিল (বাক্বারাহ ২/২১৩)। তাঁর শরী‘আতের অধিকাংশ বিধানই ছিল পৃথিবী আবাদকরণ ও মানবীয় প্রয়োজনাদির সাথে সম্পৃক্ত। কিন্তু কালের বিবর্তনে মানুষের মধ্য শিরকের অনুপ্রবেশ ঘটে। নূহের কওম ওয়াদ, সুওয়া‘, ইয়াগূছ, ইয়াঊক্ব ও নাস্র প্রমুখ মৃত নেককার লোকদের অসীলায় আখেরাতে মুক্তি […]

READ MORE

নূহ (আঃ)-এর পরিচয়

‘আবুল বাশার ছানী’ (ابوالبشرالثانى ) বা মানবজাতির দ্বিতীয় পিতা বলে খ্যাত নূহ (আলাইহিস সালাম) ছিলেন পিতা আদম (আলাইহিস সালাম)-এর দশম অথবা অষ্টম অধঃস্তন পুরুষ। তিনি ছিলেন দুনিয়াতে ১ম রাসূল। নূহ (আঃ)-এর চারটি পুত্র ছিলঃ সাম, হাম, ইয়াফিছ ও ইয়াম অথবা কেন‘আন।   প্রথম তিনজন ঈমান আনেন। কিন্তু শেষোক্ত জন কাফের হয়ে প্লাবনে ডুবে মারা যায়। […]

READ MORE

আল্লাহর প্রতি ইবাদত ও আনুগত্যের প্রতিজ্ঞা ও প্রতিশ্রুতির উদ্দেশ্য

আল্লাহ বলেন, أَنْ تَقُولُوْا يَوْمَ الْقِيَامَةِ إِنَّا كُنَّا عَنْ هَذَا غَافِلِينَ، أَوْ تَقُولُوْا إِنَّمَا أَشْرَكَ آبَاؤُنَا مِنْ قَبْلُ وَكُنَّا ذُرِّيَّةً مِّن بَعْدِهِمْ أَفَتُهْلِكُنَا بِمَا فَعَلَ الْمُبْطِلُونَ، وَكَذَلِكَ نُفَصِّلُ الآيَاتِ وَلَعَلَّهُمْ يَرْجِعُونَ- (الأعراف ১৭২ -১৭৪)- ‘(আমি পৃথিবীতে আবাদ করার আগেভাগে তোমাদের অঙ্গীকার এজন্যেই নিয়েছি) যাতে তোমরা ক্বিয়ামতের দিন একথা বলতে না পার যে, (তাওহীদ ও ইবাদতের) […]

READ MORE

আয়তুল কুরসী ফজীলত, বাংলা উচ্চারন ও অর্থ

 আয়তুল কুরসী ফজীলত যে ব্যক্তি প্রত্যেক নামাযের পর আয়তুল কুরছী পড়িবে, তাহার বেহেশতে প্রবেশ মৃত্যু ব্যতিত আর কিছুই বাঁধা দিতে পারে না। ঘুমানোর সময় পড়িলে তাহার ও প্রতিবেশীর বাড়িঘর নিরাপদে থাকিবে। উচ্চারণঃ আল্লাহু লা (আ)ইলাহা ইল্লা হুয়াল হাইয়্যুল কাইয়্যুম লা তা খুজুহু সিনাত্যু ওয়ালা নাওম। লাহু মা ফিছ ছামা ওয়াতি ওয়ামা ফিল আরদ্। মান জাল্লাজী […]

READ MORE

সুরা হাশরের শেষ ৩ আয়াতের ফজীলত, বাংলা উচ্চারন ও অর্থ

সুরা হাশরের শেষ ৩ আয়াত ফজীলত যে ব্যক্তি ফজরের নামাজের পর এবং মাগরীবের নামাজের পর এই ৩টি আয়াত একবার পাঠ করবে সত্তর হাজার ফেরেশতা সকাল থেকে সন্ধা পর্যন্ত এবং সন্ধা থেকে সকাল পর্যন্ত রাব্বুল আলামীনের নিকট মাগফেরাত কামনা করবে।   আউযুবিল্লাহহিস সামিয়ুউল আলীম মিনাশ শাইতোয়ানীর রাজীম হু আল্লা হুল্লাজী লা(আ) ইলাহা ইল্লা হু। আলিমুল গাইবী […]

READ MORE

সুরা বাকারাহ শেষ ৩ আয়াত -অর্থ সহ

সুরা বাকারাহ শেষ ৩ আয়াত -অর্থ সহ ২৮৪– লিল্লাহি মা ফিস সামা ওয়াতি ওয়ামা ফিল আর দি ওয়া ইন তুব দু মা ফি আনফুসি কুম আও তুখফুহু ইউ’ হাসিব কুম বিহিল্লাহু ফা ইয়াগফিরু লি মাইয়্যাশা য়ু ওয়া ইউ আজঝিবু মাইয়াশা য়ু ওয়াল্লাহু আলা কুল্লি সায়্যিয়িন কাদির যা কিছু আকাশসমূহে রয়েছে এবং যা কিছু যমীনে আছে, […]

READ MORE

সূরা আল মায়িদাহ-নামকরণ ও নাযিলের সময়কাল

 নামকরণ  এ সূরার ১৫ রুকূর একটি আয়াতে উল্লেখিত ‘মায়িদাহ’ শব্দ থেকে এ নামকরণ করা হয়েছে। মায়িদাহ শব্দের অর্থ ‘খাবার টেবিল’ বা ‘এমন একটি টেবিল যাতে খাবার পরিবেশিত আছে’। কুরআনের অধিকাংশ সূরার নামের মতো এ সূরার নামের সাথেও এর আলোচ্য বিষয়বস্তুর তেমন কোন সম্পর্ক নেই। নিছক অন্যান্য সূরা থেকে আলাদা হিসেবে চিহ্নিত করার জন্যই একে এ […]

READ MORE

সূরা আল মায়িদা নাযিলের উপলক্ষ

  আল ইমরান ও আন নিসা সূরা দুটি যে যুগে নাযিল হয় সে যুগ থেকে এ সূরাটির নাযিলের যুগে পৌঁছতে বিরাজমান পরিবেশ ও পরিস্থিতিতে অনেক বড় রকমের পরিবর্তন সূচিত হয়েছিল। উহুদের যুদ্ধের বিপর্যয় যেখানে মদীনার নিকটতম পরিবেশও মুসলমানদের জন্য বিপদসংকুল করে তুলেছিল। সেখানে এখন সম্পূর্ণ ভিন্নতর পরিস্থিতির উদ্ভব হয়েছে। আরবে ইসলাম এখন একটি অজেয় ও […]

READ MORE
Skip to toolbar