Menu

জীবনে সুখী হবার ১০টি উপায়

১) অন্যের কাজে নাক গলাবেন না ২) ক্ষমা করে মনে রাখবেন না ৩) স্বীকৃতির জন্য কামনা করবেন না ৪) হিংসা কে মাটি চাপা দিন ৫) নিজেকে বদলান ৬) যা থেকে পরিত্রান পাবেন না, তা সহ্য করে নিন ৭) সাধ্যাতীত কাজ এড়িয়ে চলুন ৮) সৃষ্টিকর্তাকে স্মরণ করুন ৯) মনকে শূন্য রাখবেন না ১০) অতীত নিয়ে ভাববেন […]

READ MORE

হযরত আছিয়া (আঃ)- নবম অংশ

 প্রথম অংশ পড়তে এখানে ক্লিক করুন  প্রহরীরা আগুনের এক বিশাল কুণ্ড তৈয়ার করল। এক আল্লাহকে প্রভু মেনে ফেরাউনকে কষ্ট দেয়ার পরিণতিতে আগুণে পুড়তে হচ্ছে এক নারীকে। শুধু তাই নয়। কোলের শিশুটির পর্যন্ত রেহাই নেই। মায়ের চোখের সামনে জ্বলে ভস্মীভূত হচ্ছে নিষ্পাপ বাচ্ছাটা। সে যেন মায়ের দিকে ফিরে অব্যক্ত ভাষায় বলছিল—আম্মিজান! আপনি সঠিক পথে আছেন। বিচলিত […]

READ MORE

হযরত আছিয়া (আঃ)- অষ্টম অংশ

নবম অংশ পড়তে এখানে ক্লিক করুন আছিয়া দূর থেকে দেখতে পেলেন ভরা মজলিস থেকে এক লোক উঠে দাঁড়িয়ে এর প্রতিবাদ করছেন, ভাল করে তাকিয়ে দেখলেন তিনি হিজকীল। ফেরাউনের নিষ্ঠুর চরিত্রের কথা চিন্তা করে মনে মনে তিনি বললেন—লোকটি এক্লহানে এভাবে না বললেই হয়তো ভাল করতো। হিজকীল তাঁর ভরাট গলায় বলতে লাগলেন— وَقَالَ رَجُلٌ مُّؤْمِنٌ مِّنْ آلِ […]

READ MORE

হযরত আছিয়া (আঃ)- সপ্তম অংশ

অষ্টম অংশ পড়তে এখানে ক্লিক করুন এসব কথাবার্তা নিয়ে গভীর চিন্তা—ভাবনা করে আছিয়া মূসা (আঃ) এর অকপট উপস্থাপন ও সাবলীল বর্ণনাভঙ্গিতে বেশ চমৎকৃত হলেন। কত ছোট্ট অথচ পূর্ণাঙ্গভাবে তিনি মহান প্রভুর গুণাবলীর পরিচয় তুলে ধরে বলেছিলেন— قَالَ رَبُّنَا الَّذِي أَعْطَى كُلَّ شَيْءٍ خَلْقَهُ ثُمَّ هَدَى আমাদের পালনকর্তা তিনি, যিনি প্রত্যেক বস্তুকে তার যোগ্য আকৃতি দান […]

READ MORE

হযরত আছিয়া (আঃ)- ষষ্ঠ অংশ

সপ্তম অংশ পড়তে এখানে ক্লিক করুন এ জবাব শুনে ফেরাউনের ক্রোধ কয়েকগুণ বেড়ে গেল। তাঁর আওয়াজে ক্ষিপ্রতা এসে গেল। দরবারের কথাবার্তা শুনে আছিয়া নিজ কামরায় ফিরে এসে বলতে লাগলেন—মূসার উপর এবং যে দ্বীনের দাওয়াত তারা নিয়ে এসেছে আমি তাঁর উপর পূর্ণ ঈমান আনলাম। রাব্বুল আলামীনের সমীপে নিজেকে সর্বোতভাবে সমর্পণ করলাম। এ দিকে ফেরাউনের বিকট আওয়াজ […]

READ MORE

হযরত আছিয়া (আঃ)- পঞ্চম অংশ

ষষ্ঠ অংশ পড়তে এখানে ক্লিক করুন আমার মুখের জড়তা দূর করে দিন যেন মাধুর্যপূর্ণ ভাষায় হৃদয়গ্রাহী করে আমি তাদের সত্যের পথে ডাকতে পারি। এবং আমার দাওয়াতের মুগ্ধ হয়ে এর প্রতি তারা উৎসাহী হয়। আর আমার পরিবারের একজনকে আমার সহযোগি বানিয়ে দিন, যে আমার মত একই চিন্তার অনুগামী হয়ে আমার সহযোগিতা করবে। আমার ভাই হারুনের পৃষ্ঠপোষকতায় […]

READ MORE

হযরত আছিয়া (আঃ)- চতুর্থ অংশ

পঞ্চম অংশ পড়তে এখানে ক্লিক করুন কৈশোর পেরিয়ে যৌবনের সিঁড়িতে পদার্পণ করলেন মূসা। আছিয়ার হৃদয় কন্দরে স্নেহের বৃক্ষটি এখন পত্র পল্লবে সুশোভিত। মানস পুত্র মুসাকে না দেখে থাকতে পারেনা তিনি। দুগ্ধপানের মেয়াদ শেষ হতেই মূসাকে রাজপ্রাসাদে দিয়ে গিয়েছিলেন ইউহানিব। জ্যোতিষীর কথা শুনে ফেরাউনের মাত্রা ছাড়িয়ে যাওয়া নিষ্ঠুরতা তাঁর চোখের সামনে ছিল অহেতুক ঝামেলা এড়িয়ে চলাই […]

READ MORE

হযরত আছিয়া (আঃ)- তৃতীয় অংশ

চতুর্থ অংশ পড়তে এখানে ক্লিক করুন প্রাসাদের লোকেরা এ শিশুর জন্য একজন ধাত্রী খুঁজতে লাগল। হাজার হলেও এতো এখন রাজপুত্র। আর ফেরাউন তো শুধু বাদশাই নয়। প্রজাসাধারণের স্বকল্পিত প্রভুও সে। কাজেই চতুর্দিক থেকে ধাত্রীদের আগমন্ব প্রাসাদ ভরে উঠলো। ফেরাউন ও আছিয়া বাচ্ছার জন্য একজন যুৎসই ধাত্রীর জন্য প্রতীক্ষমান। কিন্তু রজোপ্রাসাদে আগত কোন মহিলার স্তনই মুখে […]

READ MORE

হযরত আছিয়া (আঃ)- দ্বিতীয় অংশ

তৃতীয় অংশ পড়তে এখানে ক্লিক করুন লোমহর্ষক এ ঘটনার শুরুটা খুবই অম্লমধুর । ফেরাউনের রাজপ্রাসাদের অনতিদূরে ছোট্ট এক ঝুপড়িতে ইউহানিব নাম্নী এক মহিলা বাস করতেন। তাঁর গর্ভধারণের সময় ঘনিয়ে এলে নিজগৃহের এক কোণায় তিনি আবদ্ধ হয়ে রইলেন। প্রসব বেদনা শুরু হলে তিনি মেয়েকে বললেন যাও, জলদি একজন ধাত্রী ডেকে নিয়ে আস। মেয়ে ধাত্রী ডেকে আনল। […]

READ MORE

হযরত আছিয়া (আঃ)- প্রথম অংশ

দ্বিতীয় অংশ পড়তে এখানে ক্লিক করুন আল্লাহ পাক ইরশাদ করেন— وَضَرَبَ اللَّهُ مَثَلًا لِّلَّذِينَ آمَنُوا اِمْرَأَةَ فِرْعَوْنَ إِذْ قَالَتْ رَبِّ ابْنِ لِي عِندَكَ بَيْتًا فِي الْجَنَّةِ وَنَجِّنِي مِن فِرْعَوْنَ وَعَمَلِهِ وَنَجِّنِي مِنَ الْقَوْمِ الظَّالِمِينَ মুমিনদের জন্যে ফেরাউন-পত্নীর দৃষ্টান্ত বর্ণনা করেছেন। সে বললঃ হে আমার পালনকর্তা! আপনার সন্নিকটে জান্নাতে আমার জন্যে একটি গৃহ নির্মাণ করুন, আমাকে […]

READ MORE

এক জান্নাতী সাহাবিয়ার অনন্যসাধারণ ঘটনা- দ্বিতীয় অংশ

প্রথম অংশ পড়তে এখানে ক্লিক করুন হযরত আনাস রা. বর্ণনা করেন, নবী করীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম উম্মে সুলাইম ও কিছু আনসারী মহিলাকে যুদ্ধে নিয়ে যেতেন যুদ্ধাহতদের সেবা-শুশ্রূষা ও পানি পান করাতে। হুনাইনের যুদ্ধে তিনি খঞ্জর হাতে নিয়ে রণাঙ্গনের দিকে এগিয়ে গেলেন। আবু তালহা রা. বলেন, ইয়া রাসূলাল্লাহ! এই যে উম্মে সুলাইম, তার হাতে খঞ্জর! উম্মে […]

READ MORE

সতী নারীর ইজ্জত হরনের চেষ্টা অত:পর যা ঘটল।। ৩য় অংশ

প্রথম অংশ পড়তে এখানে ক্লিক করুন এদিকে হাজী সাহেব পার্শ্ববর্তী দেশের জনৈক মহিলার দরবেশীর কথা ও দোয়া কবুল হওয়ার সংবাদ জানতে পারে । তাই কালবিলম্ব না করে তার ভাই ও সকল অন্ধ লোকদের সাথে নিয়ে ঐ দরবেশ মহিলার নিকট যাওয়ার জন্য যাত্রা করে । পথে সাক্ষাত হল ঐ লোকের সাথে যে গৃহস্বামীর যুবতী কন্যাকে ঐ […]

READ MORE

সতী নারীর ইজ্জত হরনের চেষ্টা অত:পর যা ঘটল।। ২য় অংশ

তৃতীয় অংশ পড়তে এখানে ক্লিক করুন সমুদ্রপথে যাত্রার সময় জাহাজের একটি কক্ষে উভয়ে অবস্থান করে । হঠাৎ একদিন লোকটি মহিলার লাবণ্যময় চেহারা দেখে তার উপর আসক্ত হয়ে পড়ে এবং মহিলাকে কুকর্মে লিপ্ত করার জন্য আপ্রাণ চেষ্টা চালায় । কিন্তু মহিলা কিছুতেই তার প্রস্তাবে রাজি হয়নি । ঐ জাহাজের পাশের একটি কক্ষে অপর একজন বণিক সফরের […]

READ MORE

সতী নারীর ইজ্জত হরনের চেষ্টা অত:পর যা ঘটল।। ১ম অংশ

দ্বিতীয় অংশ পড়তে এখানে ক্লিক করুন বর্ণিত আছে যে, বনী ইসরাঈলের একজন বণিক লোক হজ্জ্বে যাওয়ার সময় তার স্ত্রীকে ভাইয়ের গৃহে রেখে যায় । ক’দিন পর সে মহিলাকে তার সাথে ব্যভিচারে লিপ্ত হওয়ার জন্য প্রস্তাব দেয়। মহিলা তার এ প্রস্তাবে অসম্মতি জানায় । সে অনেক জবরদস্তি করেও মহিলাকে অপকর্মে রাজি করতে পারেনি । এ দিকে […]

READ MORE

চার সর্বশ্রেষ্ঠ জান্নাতী নারী ও একটি পর্যালোচনা

আল্লাহর রসুল (স) একবার চারটা দাগ কেটে সাহাবীদের (রা) জিজ্ঞেস করলেন ” তোমরা কি জানো এগুলো কি?” সাহাবিগণ উত্তর দিলেন ” আল্লাহ ও তাঁর রাসুল ভাল জানেন” । রসুল (স) বললেন ” সর্বশ্রেষ্ঠ চার জান্নাতি নারী হল 1-খাদিজাহ বিনতে খুআইলিদ, 2- ফাতিমাহ্ বিনতে মুহাম্মাদ(সা) 3- মারিয়াম বিনতে ইমরান ( ঈসা আর এর মা ) এবং […]

READ MORE

ফাতিমার আবদার, মহানবীর (সাঃ) কম্পিত কণ্ঠস্বর

সমগ্র আরব তখন মহানবীর(সাঃ) করতলে। প্রভূত সম্পদ তখন জমা হয়েছে মদিনার নববী রাষ্ট্রে। এমনি একদিন মহানবীর(সাঃ) একমাত্র জীবিত সন্তান আদরের দুলালী ফাতিমা(রাঃ) এলেন তাঁর কাছে। মহানবী(সাঃ) দাঁড়িয়ে দুহাত বাড়িয়ে তাঁকে স্বাগত জানালেন। সস্নেহে তাঁকে পাশে বসালেন। রুমাল দিয়ে মেয়ের মুখের ঘর্মবিন্দু মুছে দিলেন। তারপর কুশল জিজ্ঞাসা করলেন মেয়ের। কুশল বিনিময়ের পর ফাতিমা(রাঃ) বিষন্নভাবে বললেন, ‘আব্বাজান, […]

READ MORE

খাদীজা বিনতু খুওয়াইলিদ (রা)–(৩য় অংশ)

  অতঃপর খাদীজা রা. রাসূলুল্লাহকে সা. সংগে করে তাঁর চাচাতো ভাই ওয়ারাকা ইবন নাওফিলের নিকট নিয়ে যান। সেই জাহিলী যুগে তিনি খৃস্টধর্ম গ্রহণ করেছিলেন। হিব্রু ভাষায় ইনজীল কিতাব লিখতেন। তিনি বৃদ্ধ ও দৃষ্টিহীন। খাদীজা রা. বললেনঃ ‘শুনুন তো আপনার ভাতিজা কি বলে।’ তিনি জিজ্ঞেস করলেনঃ ‘ভাতিজা তোমার বিষয়টি কি?’ রাসূলুল্লাহ সা. পুরো ঘটনা বর্ণনা করলেন। […]

READ MORE

খাদীজা বিনতু খুওয়াইলিদ (রা)–(২য় অংশ)

  রাসূলুল্লাহ সা. তখন পঁচিশ বছরের যুবক। এর মধ্যে চাচা আবু তালিবের সাথে বা একাকী কয়েকটি বাণিজ্য সফরে গিয়ে ব্যবসায় সম্পর্কে যথেষ্ট অভিজ্ঞতা অর্জন করে ফেলেছেন। ব্যবসায়ে তাঁর সততা ও আমানতদারীর কথাও মক্কার মানুষের মুখে মুখে ছড়িয়ে পড়েছে। সবার কাছে তিনি তখন আল-আমীন। তাঁর সুনামের কথা খাদীজার কানেও পৌঁছেছে। বিশেষতঃ তাঁর ছোট ভাই-বউ সাফিয়্যার কাছে […]

READ MORE

খাদীজা বিনতু খুওয়াইলিদ (রা)–(১ম অংশ)

নাম তাঁর খাদীজা। কুনিয়াত ‘উম্মু হিন্দ’ এবং লকব ‘তাহিরা’। পিতা খুওয়াইলিদ, মাতা ফাতিমা বিনতু যায়িদ। জন্ম ‘আমুল ফীল’ বা হস্তীবর্ষের পনের বছর আগে মক্কা নগরীতে। পিতৃ-বংশের উর্ধ পুরুষ কুসাঈ-এর মাধ্যমে রাসূলুল্লাহর সা. নসবের সাথে তাঁর নসব মিলিত হয়েছে। জাহিলী যুগেই পূতপবিত্র চরিত্রের জন্য ‘তাহিরা’ উপাধি লাভ করেন। (আল–ইসাবা) রাসূলুল্লাহ সা. ও খাদীজার রা. মধ্যে ফুফু-ভাতিজার […]

READ MORE

হযরত ফাতেমা রাঃ যেভাবে ঘরের কাজকর্ম করতেন !

হযরত আলী (রাঃ) একদিন জনৈক ব্যক্তিকে বললেন, আমি তোমাদেরকে রাসুল (সাঃ) এর সবচেয়ে স্নেহের কন্য ফাতিমা (রাঃ) এরর জীবন বৃত্তান্ত বলব- তিনি নিজে আটা পিষতেন যার দরুন তাঁর হাতে দাগ পড়ে গিয়েছিল এবং নিজেই মশক ভরে পানি আনতেন তাই তার বুকে মশকের রশির দাগ সুস্পষ্ট বিদ্যমান ছিল। আবার নিজেই ঘর ঝাড় দিতেন যে কারনে পরিধেয় […]

READ MORE

নবী-নন্দিনী ফাতেমা (রাঃ) : মানবজাতির গৌরব (২য় অংশ)

একজন পরিপূর্ণ আদর্শ মানুষ হিসেবে হযরত ফাতিমা (রাঃ)  এটা প্রমাণ করেছেন যে, পরিপূর্ণতার শিখরে ওঠার জন্য নারী হওয়া বা পুরুষ হওয়া জরুরী কোনো শর্ত নয়। তিনি জন্ম নিয়েছিলেন এমন এক যুগে যখন আরবরা নারীকে মনে করতো কেবল ভোগের সামগ্রী এবং জাত্যাভিমানী আরবদের ঘরে কণ্যা সন্তান জন্ম গ্রহণ করলে তারা অমর্যাদার ভয়ে কণ্যা সন্তানকে জীবন্ত কবর দিত […]

READ MORE

নবী-নন্দিনী ফাতেমা (রাঃ) : মানবজাতির গৌরব (১ম অংশ)

পৃথিবীতে এমন কয়েকজন অসাধারণ মানুষ জন্ম নিয়েছেন যাঁরা মানবজাতির চিরন্তন গৌরব, যাঁরা আদর্শ মানুষের প্রতীক তথা মানবতা ও মনুষ্যত্বের পূর্ণতার মডেল। এ ধরনের মানুষ পৃথিবীতে জন্ম না নিলে আদর্শের দিক থেকে মানবজাতির মধ্যে বিরাজ করতো ব্যাপক অপূর্ণতা এবং আদর্শিক শূণ্যতা ও আধ্যাত্মিক অপূর্ণতার অশেষ ঘূর্ণাবর্তে মানবজাতি হতো বিভ্রান্ত, ফলে মানুষ কাঙ্ক্ষিত উন্নতির সোপান থেকে চিরকালের […]

READ MORE
Skip to toolbar